আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেছেন আলেমরা

আজ ২৩ জুন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দল। আগে এর নাম ছিল আওয়ামী মুসলিম লীগ। এর প্রতিষ্ঠাতা একজন আলেম। বিভিন্ন সময়ে আলেমদের সঙ্গে সম্পর্ক রেখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা, বাংলাদেশের স্বাধীনতা, ভাষা আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন সত্যিকারের দেশপ্রেমী উলামায়ে কেরাম।

১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী মুসলিম লীগ যখন প্রতিষ্ঠিত হয় তখন মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী। তিনি ১৯৪৯ থেকে ১৯৫৭ সাল পর্যন্ত চারটি কাউন্সিলে সভাপতি নির্বাচিত হন। মাওলানা ভাসানী ছিলেন দেওবন্দের ছাত্র। ইসালামিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ১৯০৭-এ দেওবন্দ যান। দুই বছর সেখানে অধ্যয়ন করে আসামে ফিরে আসেন।

মাওলানা অলিউর রহমান ছিলেন আওয়ামী ওলামা পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। বঙ্গবন্ধু যখন ১৯৬৬ সালে ছয় দফা ঘোষণা করেন, তখন মাওলানা অলিউর রহমান ‘ইসলামী শরিয়তের দৃষ্টিতে ছয় দফা’ নামক একটি বই লিখে বঙ্গবন্ধুর ছয় দফার কোনো দাবিই যে ইসলামী শরিয়াবিরোধী নয়, তা প্রমাণ করেন। তাঁর এই ‘ইসলামী শরিয়তের দৃষ্টিতে ছয় দফা’ বইটি সেই সময় পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে বিপুল আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল।

বঙ্গবন্ধুর আধ্যাত্মিক সূত্রে দাদা ছিলেন সদর সাহেব হুজুর খ্যাত মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী (রহ.)। তিনি যখন লালবাগ মাদরাসার পরিচালক, তখন শেখ মুজিবুর রহমান সপ্তাহে কয়েকবার তাঁকে দেখতে লালবাগে যেতেন।

মাওলানা তর্কবাগীশ ১৯৫৬-১৯৬৭ সাল পর্যন্ত একটানা ১০ বছর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ছিলেন।

তাঁর সঙ্গেও বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সম্পর্ক ছিল। এভাবেই আলেম-উলামা অবদান রেখেছেন আওয়ামী লীগে।

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি ছিলেন আরেক আলেম। মৌলভি শামসুল হক। ১৯৫৩ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত দলের দ্বিতীয় সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন শেখ মুজিবুর রহমান।

১৯৬৬ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত তিন মেয়াদে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ। তিনি ছিলেন হাফেজে কোরআন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন