আলোচনায় বসছে ভারত-পাকিস্তান

কয়েকদিনের যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা শেষে অবশেষে আলোচনার টেবিলে বসতে যাচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি জানিয়েছেন, লাহোরের একটি শিখ মন্দিরে ভারতীয়দের ভ্রমণ নিয়ে আলোচনা করতে একটি প্রতিনিধি দল আগামী ১৪ মার্চ ভারতে সফরে যাবে। ওয়াগা-আটারি সীমান্তবর্তী এলাকায় করতাপুর করিডোর নিয়েও বৈঠক করবেন দুই দেশের কর্মকর্তারা।
এর মধ্যেই বিমান বাহিনীর হামলার পর বার্তা সংস্থা রয়টার্স, পাকিস্তানের বালাকোটের যে স্যাটেলাইট চিত্র প্রকাশ করেছে, তাতে বিস্ফোরণের স্পষ্ট চিহ্ন রয়েছে বলে দাবি করেছেন ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা। তবে এ নিয়ে সমালোচনাও বাড়ছে। বিরোধী নেতারা বলছেন, ছবিতে স্পষ্ট হয়েছে হামলায় কোনো ক্ষতিই হয়নি, অথচ ভারত সরকার ব্যাপক সাফল্যের দাবি করছে।

ভারত সরকারের বিরুদ্ধে জম্মু-কাশ্মীরে দমনপীড়নের অভিযোগ এনে গত বুধবার রাস্তায় নেমে আসেন স্থানীয় বাসিন্দারা। অধিকার হরণের পাশাপাশি কাশ্মীরি জনগণ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বঞ্চনার শিকার হচ্ছে বলেও দাবি তাদের। মেহবুবা মুফতি বলেন, গেল কয়েক দিন ধরে ব্যাপক ধরপাকড় চলছে। অনেক মুসলিম বুদ্ধিজীবীকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। এমন আগ্রাসন আমরা মেনে নেবো না, রাজ্যের জেলায় জেলায় প্রতিবাদ সমাবেশ করবো। বিনা অপরাধে যারা জেলে আছেন, তাদের মুক্তি দিতেই হবে। একই দাবিতে বিক্ষোভ হয়েছে পাকিস্তানের আজাদ কাশ্মীরেও। বিক্ষোভকারীরা ভারতকে পাকিস্তানের আলোচনার ডাকে সাড়া দেয়ার আহ্বান জানান।

ওদিকে ক্ষমতাসীন বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ-এর কড়া সমালোচনা করে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে কথা বলার পরামর্শ দেন কাশ্মীরের জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদ ওমর আবদুল্লাহ। অমিত শাহ বলেছেন, পাকিস্তানের বালাকোটে হামলায় ২৫০ জনের বেশি জঙ্গি নিহত হয়েছে। এর ভিত্তি কী? পরিপূর্ণ তথ্য-প্রমাণ চাই।
আসলে ভারতের কাশ্মীর নীতির পরিবর্তন না হলে সংকট আরও ঘনীভূত হতে পারে বলে শঙ্কা বিশ্লেষকদের।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন