একটি সরকারি চাকরির জন্য আমি আমার হিজাব খুলে ফেলতে পারি না

সিঙ্গাপুরের সেফিয়া ফারিদ নামের একজন নারী দেশটির বিভিন্ন সরকারি চাকরিতে মুসলিম নারীদের অবজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য সিঙ্গাপুরের নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি তার ফেইসবুক একাউন্টে দেয়া একটি পোস্টে বলেন, হিজাব পরিধান করার কারণে তিনি একটি সরকারি চাকরিতে আবেদন করতে গিয়ে বৈষম্যের শিকার হন।

তার মতে, তিনি একটি সরকারি চাকরিতে আবেদন করেত গেলে তাকে তার হিজাব খুলে ফেলতে বলা হয়েছিল। সাধারণত মুসলিম নারীরা মাথা ঢেকে রাখে এমন একটি পোশাক পরিধান করেন এবং একেই হিজাব বলা হয়।

বুধবার তিনি ফেইসবুকে একটি পোস্টে লিখেন, ‘আমি বিভিন্ন বর্ণের এবং ধর্মের মিশ্রণে বৈচিত্র্যপূর্ণ সিঙ্গাপুরের একজন মুসলিম নারী।’

‘আমি যখন সাক্ষাৎকার দিতে যাই তখন আমাকে বলা হয়েছিল যে, আমার যোগ্যতার ব্যাপারে বোর্ড সন্তুষ্ট। তবে যেটা আমাকে আতঙ্কিত করেছিল তা হচ্ছে, তারা মুসলিম নারীদের প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষণ করেন।’

সেফিয়া আরো যুক্ত করে বলেন, বোর্ডের সদস্যরা তাকে বলেছিলেন- ‘আপনি যদি নিয়োগ প্রাপ্ত হতে চান তবে আমরা চাই আপনি আপনার হিজাব খুলে ফেলুন। এই পদের জন্য আপনি উপযুক্ত তবে আপনার হিজাব নয়।’

এ ধরনের মন্তব্য শোনার পরে সেফিয়া জানান, ‘আমি খুবই মর্মাহত হয়েছিলাম এবং সাথে সাথে চাকরিতে যোগদানের ব্যাপারে না বলে দিয়েছিলাম। আমি এমন করেছিলাম কারণ একটি সরকারি চাকরির জন্য আমি আমার হিজাব খুলে ফেলতে পারি না।’

তিনি এই বলে তার ফেইসবুক পোস্ট শেষ করেন, ‘বিভিন্ন বর্ণ এবং ধর্মের বৈচিত্র্যপূর্ণ দেশ সিঙ্গাপুরে এমনটি ঘটছে তা চিন্তা করে আমি খুব লজ্জা পাচ্ছি।’

জেএস/

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন