এক বছর পর পাওয়া গেল হারিয়ে যাওয়া সাবমেরিন

এক বছর আগে ৪৪ ক্রু নিয়ে দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে হারিয়ে যাওয়া সাবমেরিন ‘এআরএ সান হুয়ান’র সন্ধান পাওয়ার খবর দিয়েছে আর্জেন্টিনার নৌবাহিনী।

২০১৭ সালের ১৫ নভেম্বর পাতাগোনীয় উপকূল থেকে ৪৩২ কিলোমিটার দূরে আটলান্টিক সাগরের দক্ষিণাঞ্চল থেকে শেষবার সঙ্কেত পাঠিয়েছিল সাবমেরিনটি।

সাবমেরিনটির ‘স্নরকেল’ দিয়ে পানি ঢুকছে এমন খবর পাওয়ার পর ওই দিন সেটিকে ‘মার দেল প্লাতা’ নৌঘাঁটিতে ফেরত আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল বলে জানায় রয়টার্স। ওই সময় সাবমেরিনটিতে সাত দিন চলার মতো অক্সিজেন ছিল।

নিখোঁজ হওয়ার পর দুই সপ্তাহ ধরে আর্জেন্টিনার নৌবাহিনী সাগরের তলদেশে সেটির অনুসন্ধান চালায়। সে সময় সাবমেরিনটি থেকে স্যাটেলাইট সংকেত পাওয়ার কথাও জানিয়েছিল তারা।

কিন্তু দুই সপ্তাহ পেরিয়ে যাওয়ার পরও সেটির আর কোনো খোঁজ পেতে ব্যর্থ হওয়ায় এবং ক্রুদের বেঁচে থাকার সব সম্ভাবনা শেষ হয়ে যাওয়ায় নৌবাহিনী অনুসন্ধান কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করে।

বিবিসি জানায়, শুক্রবার নৌবাহিনীর পক্ষ থেকে এক টুইটে দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে পানির দুই হাজার ৬২০ ফুট তলদেশে সাবমেরিনটির সন্ধান পাওয়ার খবর জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের একটি কোম্পানি সাবমেরিনটিকে ইতিবাচকভাবে সনাক্ত করেছে বলে ওই টুইটে জানানো হয়।

তার আগে নৌবাহিনীর পক্ষ থেকে সাগরের তলদেশে ৬০ মিটার লম্বা একটি বস্তু পড়ে থাকার ছবি প্রকাশ করে বলা হয়েছিল, এটি নিখোঁজ সাবমেরিন এআরএ সান হুয়ান হতে পারে।

এ সপ্তাহের শুরুতে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মাউরিথিও মাগ্রি ডুবোজাহাজটির অনুসন্ধান কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।

জার্মানির তৈরি ডিজেল ও বিদ্যুৎচালিত যুদ্ধযানটি ১৯৮৩ সালে যাত্রা শুরু করে। তখন এটাই ছিল সর্বাধুনিক সাবমেরিন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন