নামাজে রুকুর সুন্নত আটটি

১. তাকবির বলা অবস্থায় রুকুতে যাওয়া। (বুখারি ১/১০৮, হাদিস : ৭৮৯)

২. উভয় হাত দ্বারা হাঁটু ধরা। (বুখারি ১/১০৯, হাদিস : ৭৯০)

৩. হাতের আঙুলগুলো ফাঁকা করে ছড়িয়ে রাখা। (আবু দাউদ-১/১০৬, হাদিস : ৭৩১ সহিহ, মুসনাদে আহমদ ৪/১২০, হাদিস : ১৭০৮৫ সহিহ)

নারীরা উভয় হাত হাঁটুর ওপর স্বাভাবিকভাবে রাখবে, পুরুষদের মতো শক্ত করে ধরবে না এবং আঙুলগুলো মিলিয়ে রাখবে। (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক ৩/১৩৭, হাদিস : ৫০৬৯ সহিহ)

৪. উভয় হাত সম্পূর্ণ সোজা রাখা, কনুই বাঁকা না করা। (আবু দাউদ ১/১০৭, হাদিস : ৭৩৪ হাসান)

নারীরা তাদের উভয় বাহু পাঁজরের সঙ্গে মিলিয়ে রাখবে। (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক ৩/১৩৭, হাদিস : ৫০৬৯ সহিহ)

৫. পায়ের গোছা, হাঁটু ও ঊরু সম্পূর্ণ সোজা রাখা। হাঁটু সামনের দিকে বাঁকা না করা। (আবু দাউদ ১/১২৫, হাদিস : ৮৬৩ হাসান, মুসনাদে আহমদ ৪/১১৯, হাদিস : ১৭০৮০ সহিহ)

৬. মাথা, পিঠ ও কোমর সমান রাখা, উঁচু-নিচু না করা। (বুখারি শরিফ ১/১১৪, হাদিস : ৮২৮ মুসলিম শরিফ ১/১৯৪, হাদিস : ৪৯৮) নারীরা রুকুতে পুরুষদের তুলনায় কম ঝুঁকবে। (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক ৩/১৩৭, হাদিস : ৫৬৯ সহিহ)

৭. রুকুতে কমপক্ষে তিনবার রুকুর তাসবিহ (সুবহানা রাব্বিয়াল আজিম) পড়া। (আবু দাউদ ১/১২৯, হাদিস : ৮৮৬ সহিহ ইবনে খুজায়মা ১/৩৩৪, হাদিস : ৬৬৮ হাসান লিগাইরিহি)

৮. রুকু থেকে ওঠার সময় ইমাম ‘সামি’আল্লাহু লিমান হামিদাহ’ ও মুক্তাদি ‘রাব্বানা ওয়া লাকাল হামদ’ এবং একাকী নামাজ আদায়কারী উভয়টি বলা। (বুখারি শরিফ ১/১০১, হাদিস : ৭৩৩, ৭৮৯)

বি. দ্র. : রুকু থেকে উঠে সম্পূর্ণ সোজা হয়ে এক তাসবিহ পরিমাণ স্থিরভাবে দাঁড়ানো জরুরি। (বুখারি শরিফ ১/১১০, হাদিস : ৮০১, ৮০২)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন