ভাষা দিবস উদ্‌যাপন করাচিতেও

বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন, ০১৭৭৬৭৮৫৪৭৮, ০১৯৬৭৯৭৯০৯৩

বাংলাদেশে ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানের কথা সারাবিশ্ব জানে। কিন্তু পাকিস্তানে যে বাংলা পড়ানো হয় সেটাই জানা নেই অনেক বাঙালির। শুধু পড়ানোই হয় না, আজ বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে আলোচনা হয় ভাষা আন্দোলন নিয়ে। আর ভাষার সেতুতে জুড়ে যায় ঢাকা-কলকাতা-করাচি।

এ কথা জানান ওই বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আবু তায়েব খান।

১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশ গঠনের পর সাবেক পশ্চিম পাকিস্তান থেকে অনেক বাংলাভাষী বাংলাদেশে চলে আসেন। একটা বড় অংশ কিন্তু রয়েও গেছে সেখানে। পাকিস্তানের বাংলাভাষী জনসংখ্যার সিংহভাগেরই বাস করাচিতে।

দেশটির বাঙালি বিষয়ক কমিটির তথ্য অনুযায়ী, পাকিস্তানে বাংলাভাষীদের শ দুয়েক জনবসতি আছে। এর মধ্যে ১৩২টিই করাচিতে। করাচির সেই সব মহল্লায় দেখা মেলে বাংলা ইনবোর্ডেরও।

১৯৫১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় করাচি বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৫৩ সাল থেকেই সেখানে শুরু হয়েছিল বাংলা বিভাগের পথ চলা। তায়েব জানান, এখন স্নাতক ও স্নাতকোত্তর মিলিয়ে বিভাগে শিক্ষার্থীর সংখ্যা জনা তিরিশ। আগে চারজন শিক্ষক থাকলেও একজনের অবসরের পর এখন তিনজন। তবে এর মধ্যেও এমফিল-পিএইচডির মতো গবেষণা যাতে শুরু করা যায় তার চেষ্টা চলছে বলে দাবি তার।

স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ছাড়াও শুধু বাংলা লিখতে ও বলতে পারার জন্য তাদের সার্টিফিকেট কোর্সও রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে শিক্ষকদের যাতায়াত রয়েছে বিভাগে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন