রাত পোহালেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে ১০৭ টিতে ভোট, বিজিবি মোতায়েন

বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন, ০১৭৭৬৭৮৫৪৭৮, ০১৯৬৭৯৭৯০৯৩

পঞ্চম উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে সারাদেশে ১০৭ উপজেলায় ভোট হবে আগামীকাল রবিবার (৩১ মার্চ)। এদিন সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল চারটা পর্যন্ত বিরতিভাবে ভোট চলবে।

ভোট উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনি এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। পাঁচ বিভাগের ১৬ জেলার চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হচ্ছে।

নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ বিভাগ জানায়, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছে কমিশন। উপজেলা নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ র‌্যাব, আনসার, এপিবিএন বিজিবির দেড় লাখ সদস্য মোতায়েন করা হচ্ছে। ৫০টি উপজেলা ঝুকিঁপূর্ণ বিবেচনা করে অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

চতুর্থ ধাপে পাঁচ বিভাগের ১৬ জেলার ১০৭টি উপজেলায় ১ হাজার ১৪২ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এরমধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৮৪টি উপজেলায় ২৯২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১০০ উপজেলায় ৪৮৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯৬ উপজেলায় ৩৬৩ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এসব উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ২ কোটির বেশি এবং কেন্দ্রের সংখ্যা সাড়ে আট হাজার।

চতুর্থ ধাপে ছয় উপজেলায় ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে। উপজেলা ছয়টি উপজেলা হলো, বাগেরহাট সদর ( কেন্দ্র সংখ্যা ৯১), ফেনী সদর ( কেন্দ্র সংখ্যা ১২৭), মুন্সীগঞ্জ সদর ( কেন্দ্র সংখ্যা ১১৬), ময়মনসিংহ সদর ( কেন্দ্র সংখ্যা ১০০) ও পটুয়াখালী সদর ( কেন্দ্র সংখ্যা ৮৯)।

চতুর্থ ধাপে ১২২টি উপজেলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। এছাড়া, আগের তিন ধাপে স্থগিত হওয়া ৬টিসহ মোট ১২৮টি উপজেলায় চতুর্থ ধাপে নির্বাচনের কথা ছিল। এর মধ্যে খুলনার ডুমুরিয়া, ফেনীর ছাগলনাইয়া, ময়মনসিংহের ত্রিশাল, কুমিল্লার বরুডা উপজেলার নির্বাচন আদালতের আদেশে স্থগিত করা হয়েছে। পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া এবং নোয়াখালীর কবির হাটের নির্বাচন সহিংসতার আশঙ্কায় ইসি স্থগিত করেছে। এছাড়া ১৫ উপজেলায় সব প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া ভোট হচ্ছে না। ফলে চতুর্থ ধাপে নির্বাচন হচ্ছে ১০৭ উপজেলায়।

৮৮ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত:

চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে ৮৮ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩৯ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২২ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৭ জন প্রার্থী রয়েছেন। এছাড়াও চতুর্থ ধাপের ১৫টি উপজেলায় সব প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

যেসব উপজেলার নির্বাচন:

বরিশাল বিভাগের পটুয়াখালি জেলার পটুয়াখালি সদর, দশমিনা, গলাচিপা, কলাপাড়া, মির্জাগঞ্জ, দুমকি, বাউফল। ভোলা জেলার দৌলতখান, তজমুদ্দিন, ও লালমোহন উপজেলা। বরগুনা জেলার বরগুনা সদর, আমতলী, বেতাগী, বামনা, পাথরঘাটা উপজেলা। পিরোজপুর জেলার পিরোজপুর সদর, ইন্দুরকানী, কাউখালি, ভান্ডারিয়া, নেছারাবাদ, নাজিরপুর।

খুলনা বিভাগের যশোর জেলার যশোর সদর, বাঘারপাড়া, ঝিকরগাছা, চৌগাছা, অভয়নগর, মনিরামপুর, কেশবপুর, খুলনা জেলার দিঘরিয়া, কয়রা, দাকোপ, পাইকগাছা, রুপসা, তেরখাদা, ফুলতলা, বটিয়াঘাটা উপজেলা। বাগেরহাট জেলার বাগেরহাট জেলার বাগেরহাট সদর, মোংলা, মোরেলগঞ্জ, চিতলমারি, কচুয়া, রামপাল, ফকিরহাট, মোল্লারহাট, শরণখোলা উপজেলা।

রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট, গোমস্তাপুর, নাচোল ও শিবগঞ্জ উপজেলা। এছাড়াও রংপুর বিভাগের রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ময়মনসিংহ বিভাগের ময়মনসিংহ জেলার ময়মনসিংহ সদর, হালুয়াঘাট, ধোবাউড়া, ফুলপুর, ইশ্বরগঞ্জ, ফুলবাড়িয়া, গৌরীপুর, নান্দাইল, মুক্তাগাছা, ভালুকা উপজেলা।

ঢাকা বিভাগের মুন্সীগঞ্জ জেলার মুন্সীগঞ্জ সদর, সিরাজদিখান, লৌহজং, শ্রীনগর, টংগিবাড়ি, গজারিয়া উপজেলা। নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার, সোনারগাঁও, রূপগঞ্জ উপজেলা। ঢাকা জেলার, ধামরাই, দোহার, নবাবগঞ্জ উপজেলা। টাঙ্গাইল জেলার টাঙ্গাইল সদর, ধনবাড়ি, মধুপুর, মির্জাপুর, দেলদুয়ার, নাগরপুর, ঘাটাইল, ভুঞাপুর, কালিহাতি, গোপালপুর, বাসাইল, সকিপুর উপজেলা।

চট্টগ্রাম বিভাগের কুমিল্লা জেলার তিতাস, চান্দিনা, মুরাদনগর, বুড়িচং, ব্রাহ্মণপাড়া, মেঘনা ও হোমনা উপজেলা। নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ, সেনবাগ, সোনাইমুড়ি, সুবর্ণচর, চাটখিল উপজেলা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, সরাইল, আখাউড়া, আশুগঞ্জ, নাসিরনগর ও নবীনগর উপজেলা। ফেনী জেলার ফেনী সদর, ফুলগাজি, সোনাগাজি, দাগনভুঁঞা উপজেলা।

উল্লেখ্য, পঞ্চম উপজেলা নির্বাচন পাঁচ ধাপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আগামী ১৮ জুন পঞ্চম ও শেষ ধাপের ২১ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন