সন্তানের বিবাহে অবহেলায় অপরাধী অভিভাবক

In this Sunday, Sept. 11, 2016 photo, Indonesian women make their way down after prayer on a rocky hill known as the Mountain of Mercy, on the Plain of Arafat, during the annual hajj pilgrimage, near the holy city of Mecca, Saudi Arabia. (AP Photo/Nariman El-Mofty)

সন্তানের লালন-পালন, সুশিক্ষা দেওয়া ও শরিয়তের আদেশ-নিষেধ সম্পর্কে অবহিত করে তা মানার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করা যেমন মা-বাবার দায়িত্ব, তেমনি ছেলে বিয়ের উপযুক্ত হলে তাকে পাপাচার থেকে রক্ষা করার জন্য সাধ্যানুযায়ী বিয়ের ব্যবস্থা করাও তাদের দায়িত্ব। ছেলে-মেয়েকে বিয়ে না দিলে গুনাহে লিপ্ত হওয়ার আশঙ্কা হলে বিয়ে দেওয়া জরুরি।

এ রকম অবস্থায় মা-বাবার সাধ্য থাকা সত্ত্বেও সহযোগিতা না করলে ছেলে-মেয়ের পাপে মা-বাবাও শরিক হয়ে যাবে বলে হাদিসে উল্লেখ রয়েছে।

রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, যার সন্তান রয়েছে সে যেন তার সুন্দর নাম রাখে এবং তাকে উত্তম চরিত্র শেখায়। যখন সে বালেগ (প্রাপ্তবয়স্ক) হবে, তখন তার বিয়ে দেয়। বালেগ (প্রাপ্তবয়স্ক) হওয়ার পরও যদি বিয়ে না দেয় আর সে কোনো গুনাহ করে ফেলে, তাহলে তার এই গুনাহ তার পিতার ওপর বর্তাবে। (শুআবুল ঈমান, হাদিস : ৮৬৬৬)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন