সৌদি আলেম সালমান আওদার কি মৃত্যুদন্ড হচ্ছে?

মুহাম্মাদ শোয়াইব ।।

সৌদি আরবের বিশিষ্ট দাঈ শেখ সালমান আওদার মৃত্যুদন্ডের রায় হওয়ার আশংকা রয়েছে। প্যারিস থেকে তার আইনজীবী ফ্রাঙ্কোসি জিমেরা, মার্ক বনান ও জেসিকা ফিনিল এই খবর নিশ্চিত করেছেন। ফ্রাঙ্কোসি জিমেরা বলেন, শেখ আওদাহ স্বাধীনভাবে নিজের মত প্রকাশ করায় তার মৃত্যুদন্ডের রায় দিতে পারে সৌদি আদালত।

তারা বলেন, হঠাৎ করে আজ শেখ আওদার মামলার শুনানির জন্য নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়। তার আইনজীবীরা বলেন, হঠাৎ করে তার মামলাটি সামনে নিয়ে আসার পেছনে কোনো কারণ দেখছি না। তবে তারা তার মৃত্যুদন্ডের রায় আসার আশংকা প্রকাশ করেন।

এর আগে সৌদি আরবের প্রভাবশালী অনলাইন পত্রিকা ‘আনহা’ পত্রিকার লেখক আবদুল আজীজ কাসেম জেলে তার সঙ্গে সালমান আওদার কথা হয়েছে বলে জানান। তিনি তার সঙ্গে মুহাম্মাদ বিন সালমান সম্পর্কে দীর্ঘ আলোচনা করেন। শেখ আওদা মুহাম্মাদ বিন সালমানকে “ভবিষ্যৎ পরুষ” হিসেবেও আখ্যায়িত করেন। পরে তিনি আনহায় একটি লেখা লিখে বিষয়টি প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, সালমান আওদাকে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতে সৌদি আরবের বরিদ শহরে তার নিজ বাসগৃহ থেকে সেদেশর কর্তৃপক্ষ তাকে গ্রেফতার করে জেদ্দায় নিয়ে যায়।

সৌদি কর্তৃপক্ষ তার সাথে আরও ২০ জনকে গ্রেফতার করেছে। শেখ সালমান আওদার গ্রেফতারের মুল কারণ হচ্ছে একটি টুইট বার্তা। তিনি টুইট বার্তা লিখেছিলেন: “ইনশাল্লাহ, আল্লাহ পাক আরবদের অন্তরকে নিকটবর্তী করুক। কারণ সব মানুষের ভালো এর মধ্যে রয়েছে।

কাতরের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলে সানি এবং সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের মধ্যে টেলিফোন যোগাযোগের পর সৌদি মুফতি শেখ সালমান আওদার এই টুইট বার্তা লেখেন।

সূত্র : রাশিয়ার স্পুটনিকনিউজ (অ্যারাবিক) ও সৌদি আরবের আনহা

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন