হজের কোটা দেড় লাখ করার দাবি জানাবে বাংলাদেশ

বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন, ০১৭৭৬৭৮৫৪৭৮, ০১৯৬৭৯৭৯০৯৩

বাংলাদেশ হজের কোটা বাড়িয়ে দেড় লাখ করার দাবি জানাবে সৌদি সরকারের কাছে। বর্তমানে বাংলাদেশের জন্য হজযাত্রীর কোটা ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন। গত তিন বছর ধরে এই কোটায় হজযাত্রী পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ। মূলত আদমশুমারির আলোকেই সৌদি সরকার হজের কোটা নির্ধারণ করে থাকে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১৭ সালের হিসাব মতে বাংলাদেশের জনংখ্যা ১৬ কোটি ১৭ লাখ ৫০ হাজার জন। এর মধ্যে মুসলিম জনসংখ্যা ৮৮.৪ শতাংশ। তবে সৌদি সরকার ২০১১ সালের আদমশুমারির পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে বাংলাদেশের জন্য কোটা নির্ধারণ করে থাকে। ওই শুমারি অনুযায়ী বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল ১৪ কোটি ২৩ লাখ।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র জনসংযোগ কর্মকর্তা আনোয়ার হোসাইন জানান, ইতোমধ্যেই কাউন্সিলর হজ মো: মাকসুদুর রহমান সৌদি কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে আগামী হজের জন্য বাংলাদেশের কোটা বাড়িয়ে দেড় লাখ করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, পরিসংখ্যান ব্যুরোর সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী বাংলাদেশের জনসংখ্যার হিসাবে, বাংলাদেশের বর্তমান মুসলিম জনসংখ্যা অনুযায়ী হজের কোটা ১ লাখ ৪৮ হাজারের বেশি পাওয়ার কথা। কিন্তু সৌদি সরকার গত তিন বছর ধরেই সর্বশেষ আদমশুমারির হিসাবেই হজের কোটা দিয়ে আসছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে হজযাত্রীর সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতিবছর এক লাখের বেশি হজযাত্রী কোটার অতিরিক্ত থেকে যাচ্ছে।

আনোয়ার হোসেন জানান, আগামী ১৩ ডিসেম্বর সৌদি আরবে আগামী হজের জন্য সৌদি সরকারের সাথে হজচুক্তি হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন