১৩ জনকে বাঁচিয়ে নিজেই তলিয়ে গেলেন

জোসেফ ব্ল্যাংকসনের খুব ইচ্ছে ছিলো নামজাদা সাঁতারু হবেন। হয়তো সাঁতারু শব্দটি তার নামের সঙ্গে খেতাব হিসেবে যুক্ত হয়নি। কিন্তু মানুষ বাঁচাতে গিয়ে গড়ে গেলেন অনন্য নজির। নৌকাডুবি দুর্ঘটনায় ১৩ জনকে বীরের মতো বাঁচানোর পর ১৪তম জনকে বাঁচাতে গিয়ে নিজেই তলিয়ে গেলেন স্রোতের তোড়ে। নাইজেরিয়ান ব্ল্যাংকসনের এমন বীরত্বগাঁথা এখন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের পাতায় পাতায়।

নাইজেরিয়ার সংবাদমাধ্যম জানায়, দেশের দক্ষিণাঞ্চলের গিনি উপসাগরকূলের রাজ্য রিভার্সের ওই নদীতে একটি নৌকায় বোনসহ ভ্রমণ করছিলেন ব্ল্যাংকসন। সেখানে ছিলেন মোট ২৪ জন। আকস্মিকভাবে নৌকাটি ডুবে গেলে অনেকে হাবুডুবু খেতে থাকেন। ব্ল্যাংকসন তখন আর কিছু না ভেবে নেমে পড়েন উদ্ধার কাজে। একে একে ১৩ জনকে নদী থেকে টেনে তোলেন তীরে। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, ১৪তম ব্যক্তিকে উদ্ধার করতে গিয়ে নিজেই ভেসে যান পানির তোড়ে। হয় তার সলিল সমাধি।

রিভার্স রাজ্য পুলিশের মুখপাত্র নামদি অমোনি বলেন, নৌকাটি ডুবে যাওয়ার পর ১৩ জনকেই উদ্ধার করেন ব্ল্যাংকসন। কিন্তু ১৪তম ব্যক্তিকে উদ্ধারে গিয়ে ভেসে যান তিনি। ডুবুরি দলের তৎপরতায় অন্য ১০ জনও বেঁচে গেলেও দুঃখের বিষয় নৌকাডুবিতে প্রাণ হারানো ব্যক্তি কেবল ব্ল্যাংকসনই।

নামদি অমোনি আরও বলেন, দুই সন্তানের জনক ৩৬ বছর বয়সী ব্ল্যাংকসন বেঁচে থাকতে সবার পছন্দের মানুষ ছিলেন। মহান আত্মত্যাগে তিনি বেঁচে থাকবেন জীবনঘনিষ্ঠ ‘সুপার-হিরো’ হিসেবে।

জোসেফের স্ত্রী মার্সি বলেন, তিনি নিঃস্বার্থ মানুষ ছিলেন। তিনি সবসময় অন্যের কথা ভাবতেন। নিজের কথা পরে ভাবতেন। সবাই তাকে ভালবাসতো। আমার সন্তানদের বাবা হিসেবেও তিনি অসাধারণ ছিলেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নাইজেরিয়ান নাগরিকরা ব্ল্যাংকসনের প্রশংসা করে পোস্ট দিচ্ছেন। তারা বলছেন, এই বীরাত্মাকে কখনোই ভোলার নয়। তিনি মানবতার প্রতীক হিসেবে বেঁচে থাকবেন সবার হৃদয়ে।

জেবিএস/

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন