চুয়াডাঙ্গায় দৃষ্টি হারানো ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণের রায় বহাল

ঢাকা: চুয়াডাঙ্গার ইমপ্যাক্ট মাসুদুল হক মেমোরিয়াল কমিউনিটি হেলথ সেন্টারে চক্ষুশিবিরে দৃষ্টি হারানো ১৭ জনকে ওষুধ (ট্রাইপেন ব্লু) সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান আইরিশ এন্টারপ্রাইজকে পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার রায় বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।

হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আইরিশ এন্টারপ্রাইজের করা আবেদনের শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সাত সদস্যের আপিল বিভাগ নো অর্ডার দিয়ে আজ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।

এর আগে গত ২১ অক্টোবর হাইকোর্ট এক রায়ে ওই কমিউনিটি হেলথ সেন্টারের চক্ষুশিবিরে দৃষ্টি হারানো ১৭ জনকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ১০ লাখ টাকা করে দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

এর মধ্যে প্রত্যেককে পাঁচ লাখ টাকা করে ইমপ্যাক্ট এবং বাকি পাঁচ লাখ টাকা চক্ষুশিবিরে অস্ত্রোপচারে অনুমোদনহীন ওষুধ (ট্রাইপেন ব্লু) সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান আইরিশ এন্টারপ্রাইজকে দিতে বলা হয়েছিল।

এর মধ্যে ইমপ্যাক্ট চোখ হারানো ১৭ জনসহ ক্ষতিগ্রস্ত ২০ জনকে পাঁচ লাখ টাকা করে প্রদান করেছে। অন্যদিকে, পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আদেশ স্থগিত চেয়ে আইরিশ এন্টারপ্রাইজ আপিল বিভাগে আবেদন করে। গত ১১ নভেম্বর চেম্বার বিচারপতির আদালত আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন।

আদালতে আইরিশের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী শ ম রেজাউল করিম। হাইকোর্টে রিট আবেদনকারী আইনজীবী অমিত দাশগুপ্ত নিজেই শুনানিতে অংশ নেন। ইমপ্যাক্টের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী তানিয়া আমীর।

গত ২৯ মার্চ ‘চক্ষুশিবিরে গিয়ে চোখ হারালেন ২০ জন!’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন ছাপা হয়। এ প্রতিবেদন যুক্ত করে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অমিত দাশগুপ্ত রিট করেন, যার ওপর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ১ এপ্রিল হাইকোর্ট ক্ষতিপূরণ প্রদানের বিষয়সহ কয়েকটি বিষয়ে রুল দেন। রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে গত ২১ অক্টোবর চোখ হারানো ১৭ জনকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ১০ লাখ টাকা করে দিতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন