ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ বিভিন্ন সংগঠনের

ঢাকা: সম্প্রতি নির্বাচন উপলক্ষ্যে ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। যদিও নির্বাচন কমিশন বলেছে, ইতোমধ্যে যেসব ওয়াজ-মাহফিলের তারিখ নির্ধারণ করা আছে, সেগুলো করা যাবে। ইসির এ সিদ্ধান্তের ফলে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে আলেম-ওলামা ও ধর্মপ্রাণ সাধারণ মহলে। বিবৃতি জানিয়েছে বিভিন্ন সংগঠন।

দেশের ওয়ায়েজীনে কেরামের বৃহৎ সংগঠন জাতীয় ওয়ায়েজীন পরিষদ বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতি মুজিবুর রহমান চাটগামী, সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা আজহারুল ইসলাম আজমী ও মহাসচিব মাওলানা আবুল কালাম আজাদ এ প্রসঙ্গে এক যৌথবিবৃতি দিয়েছেন।

বিবৃতিতে তাঁরা ‌সুষ্ঠু নির্বাচনের দোহাই দিয়ে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রেরিত চিঠির ভিত্তিতে সারাদেশে পবিত্র কোরআনের তাফসীর ও ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ কিংবা নিয়ন্ত্রণের অপচেষ্টার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘ঠুনকো, অবাস্তব ও অযৌক্তিক অজুহাত দিয়ে শতকরা নব্বই ভাগ মুসলমানের দেশে পবিত্র কোরআনের ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ করা কিংবা নিয়ন্ত্রণ করার অপচেষ্টা এক ধরনের ধর্মদ্রোহী মনোভাবের পরিচয় এবং ইসলামের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ’

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন প্রয়োজনে পবিত্র কোরআনের ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ না করে নির্বাচনী গণসচেতনতা তৈরীতে দেশের ওয়ায়েজীন ও খতীবদের কাজে লাগাতে পারতেন।’

ওয়াজ মাহফিলে নিষেধাজ্ঞা জারী করায় বিবৃতি দিয়েছে ‘ইত্তেফাকুল ওয়ায়েজীন’ নামে আরো একটি সংগঠন।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতি ওমর ফারুক যুক্তিবাদী ও নির্বাহী সভাপতি মাওলানা ইসমাইল হোসেন সিরাজী এবং মহাসচিব মাওলানা ইউসুফ বিন এনাম শিবপুরী এক যৌথবিবৃতিতে প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশে অনেক প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও নির্বাচন হয়েছে। কোনো নির্বাচন কমিশন যুগ যুগ ধরে চলমান ইসলাম প্রচারে চেতনার উৎসব এই ওয়াজ মাহফিল বন্ধ করেনি। তাওহীদপ্রিয় মানুষের হৃদয়ে গেঁথে যাওয়া ওয়াজ-মাহফিল বন্ধ করে দেওয়া এক ধরনের ধৃষ্টতা।’

বিবৃতিতে তাঁরা অচিরেই এই সিদ্ধান্ত বাতিল করে ওয়াজ-মাহফিল উন্মুক্ত করে দেওয়ার আহবান জানান।

জেএস/

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন