ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নৌকায় ভোট দেওয়ার দরকার নাই : বদি

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে কোনো ইয়াবা ব্যবসায়ী নৌকায় ভোট দেওয়ার দরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন এক সময়ে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ীদের তালিকায় নাম থাকা এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি।

কক্সবাজার-৪ আসনে নৌকার প্রার্থী স্ত্রী শাহিন আকতারের প্রচারণায় টেকনাফের হ্নীলার রঙ্গিখালীতে বুধবার পথসভায় বক্তব্যকালে এমপি বদি এ মন্তব্য করেন।

এমপি বদি বলেন, ‘উখিয়া-টেকনাফের অনেক বদনাম রয়েছে। এখান থেকে অনেক ব্যক্তি সারা বাংলাদেশে ইয়াবা বিক্রি করে। ইয়াবার কলঙ্ক থেকে টেকনাফের নাম মুছে ফেলতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘টেকনাফ থেকে ইয়াবা সরবরাহ বন্ধ করতে হবে। যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদেরকে শাস্তি পেতেই হবে। তাদের কোনো রকম রেহাই দেওয়া হবে না। যারা ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং ইয়াবা ব্যবসায়ীর পৃষ্ঠপোষক তাদের ভোট কেন্দ্রেও প্রতিহত করতে হবে।’

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের মার্চ মাসে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিজিবি, র‍্যাব, পুলিশ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর, কোস্টগার্ড ও গোয়েন্দা সংস্থার সমন্বয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের যে হালনাগাদ তালিকা তৈরী করা হয় সেখানে বাদ যায় বদির নাম।

প্রশাসনিক সেই তালিকা থেকে এমপি বদির নাম বাদ পড়লেও বাদ যায়নি তার স্বজনরা। এমপি বদির ভাই, ভাগ্নে ও পরিবারের একাধিক সদস্যসহ বদির আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত অনেকের নাম আছে শীর্ষ ৬০ গডফাদারের তালিকায়।

এক দশক ধরে বদির বিরুদ্ধে ইয়াবা-কানেকশনের অভিযোগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার বদলে স্ত্রী শাহিন আকতারকে নৌকা মার্কায় মনোনয়ন দেওয়া হয়।

স্ত্রীর নির্বাচনী প্রচারণায় ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নৌকায় ভোট না দেয়ার আহবান জানিয়ে বদি বলেন, ‘যারা ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং ইয়াবা ব্যবসায়ীর পৃষ্ঠপোষক তাদের ভোট কেন্দ্রেও প্রতিহত করতে হবে।’

পথসভায় আরো বক্তব্য রাখেন টেকনাফ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জাফর আহম্মদ, হ্নীলা ইউনিয়ন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এস. কে. আনোয়ার, জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক ইউনুস বাঙ্গালী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব মুর্শেদ, টেকনাফ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সরওয়ার আলম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হক প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন