আওয়ামী লীগই ক্ষমতায় থাকছে!

আরহাম আব্দুল্লাহ

বেসরকারি সংস্থা রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (আরডিসি) সম্প্রতি একটি জরিপ প্রকাশ করেছে। তাদের জরিপ মতে, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৪৮টি আসন পাবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট পাবে ৪৯টি। বাকি তিনটি আসন পাবে অন্যরা।

জরিপ মতে, ৬০ ভাগ ভোটার আওয়ামী লীগের পক্ষে নৌকায় ভোট দেয়ার চিন্তা করছেন। অন্যদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে রয়েছেন ২২ শতাংশ ভোটার। এ ছাড়া ৪ শতাংশ ভোটার জাতীয় পার্টির (জাপা) পক্ষে এবং ১০ শতাংশ ভোটার কাকে ভোট দেবেন সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানাতে পারেননি।

দেশের অর্ধশতাধিক নির্বাচনী এলাকার ভোটারদের মতামতের ভিত্তিতে এ তথ্য জানায় আরডিসি। গত বুধবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে ওয়েস্টিন হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ভোট জরিপের ফলাফল তুলে ধরেন বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর পরামর্শক ও আরডিসির অর্থনীতিবিদ ফরেস্ট ই কুকসন।

ভোট দেওয়ার পাশাপাশি রাজনৈতিক দলগুলো সম্পর্কে মতামত দিয়েছে ভোটাররা। ফলাফলে আওয়ামী লীগকে ভালো বলেছে, ৬৪ দশমিক ৬ শতাংশ মানুষ এবং খারাপ বলেছে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ। বিএনপিকে ভালো বলেছে ২৭ দশমিক ৬ শতাংশ মানুষ এবং খারাপ বলেছে ১৮ দশমিক ২ শতাংশ মানুষ। জাতীয় পার্টিকে ভালো বলেছে ১৪ দশমিক ৯ শতাংশ এবং খারাপ বলেছে ১৫ দশমিক ৮ শতাংশ।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এই জরিপের তথ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা ও ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, ‘২০০৮ সালের নির্বাচনের চেয়েও এবার বেশি ব্যবধানে জয়লাভ করবে আওয়ামী লীগ।’ সেই সাথে তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ১৬৮ থেকে ২২০টি আসনে জিতবে মনে করেন বলেও জানান।

এদিকে আজ বৃহস্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে
দৈনিক ইনকিলাব একটি জনমত জরিপ প্রকাশ করেছে।

ইনকিলাবের এই জনমত জরিপ বলছে, বর্তমান অবস্থায় ভোট হলে এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের নৌকা মার্কার প্রার্থীরা ১২৬ আসন, বিএনপির নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীরা ১২৯ আসন, জাতীয় পার্টির লাঙল ৯টি এবং জেপি সাইকেল প্রতীক ১টি আসন পেতে পারে বলে পূর্বাভাস পাওয়া গেছে। অন্য ৩৫টি আসনের কয়েকটিতে ত্রিমুখী এবং অধিকাংশ আসনে হবে নৌকা-ধানের শীষের দ্বিমুখী লড়াই।

দৈনিক ইনকিলাবের ব্যুরো, আঞ্চলিক অফিস, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সাংবাদিকদের নিজস্ব এক জরিপে এ চিত্র উঠে আসে বলে জানানো হয়েছে।

আরডিসির জরিপে মহাজোট পরিস্কারভাবেই এগিয়ে আছে। অন্যদিকে ইনকিলাব জনমত জরিপে বিএনপি মাত্র তিন আসনে এগিয়ে আছে। এই দুটি জরিপকে সামনে রেখে বিবেচনা করলে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট বিজয়ী হবে বলেই ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

বুধবার আনন্দ বাজার ডিজিটালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা সেই প্রত্যাশার কথাই জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের সাধারণ নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকেই নির্বাচিত করে আবার ক্ষমতায় নিয়ে আসবে। তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, আওয়ামী লীগই ক্ষমতায় আসছে আবার।

তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বিএনপিসহ বেশিরভাগ দল বর্জন করেছিল। তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে তাদের দাবি পূরণ না হলেও এবার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বিএনপি। ফলে ১০ বছর পর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মুখোমুখি হয়েছে। একই সাথে নির্বাচনে বিপুলসংখ্যক রাজনৈতিক দল ও প্রার্থী অংশ নেওয়ায় এবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এক হাজার ৮০০-এর বেশি প্রার্থী। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থী প্রায় এক হাজার ৭৫০ জন। বাকিরা স্বতন্ত্র প্রার্থী।

তাই ছায়া ভোটের ফলাফলের মতো প্রকৃত ভোটেও মহাজোট বিজয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় কি-না জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরো দুই দিন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন