পশ্চিমাদের মুসলিম বিদ্বেষ ‘নব্য নাৎসিবাদ’ : ওআইসির বৈঠকে এরদোয়ান

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেছেন, পশ্চিমাদের মুসলিম বিদ্বেষী মনোভাব এক ‘নব্য নাৎসিবাদ’। শুক্রবার তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাপাসুগলোর সভাপতিত্বে প্রায় ২২টি মুসলিম দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা ওআইসির এ বৈঠকে অংশ নেন। ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে খ্রিস্টান শ্বেতাঙ্গবাদীর চালানো স্মরণকালের ইতিহাসের বর্বরোচিত হামলার প্রেক্ষিতে ইস্তাম্বুলে পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এ বৈঠক আহবান করে ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) ।

প্রেসিডেন্ট এরদোগান এ বৈঠকে ইউরোপীয় নব্য নাৎসিবাদের হাতে মুসলমানদের নির্যাতিত হওয়ার তালিকা দিয়ে বলেন, ইউরোপের নব্য নাৎসিবাদীরা ২০১৩-২০১৭ পর্যন্ত ১১৩টি হামলা করে,যার মাধ্যমে ৬৬ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল।

ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে খ্রিস্টান জঙ্গীর চালানো হামলার বিষয়টিকে পশ্চিমাদের চড়ানো ঘৃণাচর্চার বহিঃপ্রকাশ এ অমানবিক হামলা উল্লেখ করে এরদোগান বলেন, এটি বিচ্ছিন্ন বা সাধারণ কোনো হামলা নয়। এ হামলার পেছনে রয়েছে ঘৃণা ও আধিপত্যবাদের মানসিকতা।

তিনি বলেন, বর্ণবাদের এ সংস্কৃতি শুধু মুসলমানদেরই ক্ষতি করবে না। শেষ সময়ে তা সব ধর্ম ও জাতিগোষ্ঠীর জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়াবে। তাই এখনই সবার একটি সমন্বিত পদক্ষেপ দরকার, যা মানবতাকে এ ঘৃণাচর্চা থেকে বাঁচাবে।

তিনি জোর দিয়ে বলেন, বিশ্ব সম্প্রদায়কে এখন মুসলমানদের বিরুদ্ধে ক্রমবর্ধমান ঘৃণা মোকাবেলা করতে হবে। হলোকাস্টের মহাবিপর্যয়ের পর যখন ইহুদিবিদ্বেষের বিরুদ্ধে বিশ্ব মানবতা লড়াই করেছে, ঠিক একইভাবে ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাওয়া উচিত।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন