তুরস্কে আবারো জয় পেলো এরদোগানের দল

গতকাল (৩১ মার্চ) অনুষ্ঠিত হয়েছে তুরস্কের স্থানীয় নির্বাচন। এতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানের দল একে পার্টি বিপুল পরিমাণ ভোটে বিজয় লাভ করেছে। ফলফলের তাৎক্ষণিক গতিক্রিয়া স্বরূপ এরদোগান বলেন, পরপর ১৫টি নির্বাচনে জনগণ আমাদের নির্বাচিত করেছে।

সোমবার (১ এপ্রিল) গণমাধ্যমে প্রেরিত বার্তায় এরদোগান এসব কথা বলেন।

এরদোগান বলেন, ৫৭ শতাংশ পৌরসভায় একে পার্টিকে জনগণ নির্বাচিত করেছে। আমি সকল জনগণকে ধন্যবাদ জানাই বিশেষকরে কুর্দিভাইদের। তারা আমাদের পুনরায় সেবা করার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। আজ আঙ্কারায় একে পার্টির সদর দপ্তরের বেলকনি থেকে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেওয়া হবে।

সর্বশেষ ফলাফল অনুসারে ক্ষমতাসীন জোটের প্রাপ্ত ভোট; ৫১.৭৪% এবং বিরোধী জোটের;৩৭.৬৪%। এরমাঝে একে পার্টির ভোট ৪৪.৯৫%, যা আগের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ছিল ৪৫.৫%। দলগুলোর ভোটের অনুপাত আগের নির্বাচনের তুলনায় খুববেশী রকমফের হয়নি। কারো ১-২% কম কিংবা বেশী।

একে পার্টি জোট প্রধান শহর ইস্তান্বুলে মেয়র পদে জয়লাভ করলেও রাজধানী আনকারার মেয়র পদে পরাজিত হয়েছে। এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ শহর আনতালিয়াও একে পার্টির হাতছাড়া হয়েছে। মোট ৩০ টি সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে এই নির্বাচনের আগে একে পার্টির মেয়রের সংখ্যা ছিল ১৮ জন। এই নির্বাচনে ২ জন কমে ১৬ জনে দাড়িয়েছে। বাকী জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে পৌরসভাগুলো খুববেশী হাতছাড়া হয়নি একে পার্টির।

কিছু সিটিতে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল না আসায় জনগণের মতামতকে প্রাধান্য দিয়েছেন এরদোগান। এরদোগান বলেন, আগামীকাল আমরা বসবো। আমার ত্রুটিগুলো আমরা বিশ্লেষণ করবো।

এরদোগান বলেন, আগামী দিনগুলোতে দল ও তুরস্কে অনেক পরিবর্তন আসবে। আগামী সাড়ে চার বছর কোনো নির্বাচন হবেনা, তাই বলে আমরা কি বসে থাকবো? আমরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়গুলোতে মনোনিবেশ করবো। আশাকরি আমাদের দেশের অনেক উত্থান ঘটবে। আমাদের লক্ষ্য থাকবে অর্থনীতিকে শক্তিশালী, উন্নয়ন অব্যাহত ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করে যাওয়া। বিশেষ করে তুরস্কের লক্ষ্য হলো সিরীয় শরনার্থীদের মানবিজ ও ফোরাতের পূর্ব পাড়ে নিরাপদে স্থানান্তরিত করা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন