নোয়াখালীতে সন্ত্রাসবিরোধী জনসভায় সংঘর্ষ

নোয়াখালী প্রতিনিধি : গতকাল নোয়াখালীর প্রধান বাণিজ্যিক কেন্দ্র চৌমুহনী বাজারে ব্গেমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদ বিরোধী সমাবেশে দুই পক্ষের সংঘর্ষে সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। এ সময় সেখানে ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ শোনা যায়, প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষের সময় পুলিশ শতাধিক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। সোমবার বিকেল ৩টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এ ঘটনায় চৌমুহনী বাজারে যানবাহন চলাচল ও দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। এ ঘটনায় ১২ পুলিশসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধসহ আহত ৪ জনকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে এবং অপর আহতদের বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় সংসদ সদস্য কিরন মেয়র ফয়সালকে অপরদিকে মেয়র ফয়সাল সংসদ সদস্যের কর্মীদের দায়ী করছেন।

জানা যায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে বেগমগঞ্জ আ. লীগের প্রবীন নেতা আ্যডভোকেট আনসারীর ওপর হামলা হয়। এর প্রতিবাদে সোমবার বিকেলে চৌমুহনী পাবলিক হল চত্বরে বেগমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদ বিরোধী সমাবেশের আয়োজন করে।

নোয়াখালী বেগমগঞ্জ চৌমুহনীতে এমপি কিরন ও মেয়র ফয়সাল সাহেব_এর গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ।

Posted by সারোয়ার হোসেন সাইফুল on Monday, September 17, 2018

বিকেল ৩টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল মান্নান বাবুলের সভাপতিত্বে সমাবেশ শুরু হলে সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরনের সমর্থকরা সমাবেশে আসার আগেই চৌমুহনী পৌরসভার মেয়র আখতার হোসেন ফয়সালের সমর্থকরা সেখানে অবস্থান নেয়। পরে সংসদ সদস্যের সমর্থনে একটি মিছিল সমাবেশে আসার সঙ্গে সঙ্গে চৌমুহনী পৌরসভার মেয়র আক্তার হোসেন ফয়সালের উপস্থিতিতে তার সমর্থকদের সঙ্গে সংসদ সদস্য সমর্থকদের কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতি শুরু হয়। এক পর্যায়ে উত্তেজিত কর্মীরা চেয়ার ছোড়াছুড়ি করে। শুরু হয় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ। বিকেলে সাড়ে তিনটা থেকে শুরু হওয়া এ সংঘর্ষ সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলে। হামলায় উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়। উভয় গ্রুপ ইট-পাটকেল, লাঠিসোটা ব্যবহার করে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে জেলা যুবলীগের কর্মী রাকিব উদ্দিন চৌধুরি (২৯),  সুমন (৩০), বজদাস (৩৮) ফয়েজ আহমেদ (৩২), বাকের (৩৫) ও ১২ পুলিশসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ ১ জনসহ ৪ জনকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে এবং অন্যান্যদের বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নোয়াখালী বেগমগঞ্জ চৌমুহনীতে এমপি কিরন ও মেয়র ফয়সাল সাহেব_এর গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ।

Posted by সারোয়ার হোসেন সাইফুল on Monday, September 17, 2018

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শতাধিক রাউন্ড গুলি ও ৮ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। এদিকে সংঘর্ষ চলকালে গোটা চৌমুহনী বাজারে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। বাজারের সকল দোকান পাট বন্ধ হয়ে যায়। বাজারের দুই পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

বেগমগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহজাহান শেখ জানান, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শতাধিক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও ৮ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়া হয়। এ ঘটনায় ১২ পুলিশ সদস্য আহত হয় তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

বেগমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নোয়াখালী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডাক্তার জাফর উল্লাহ এ ঘটনাটিকে অনাকাঙ্খিত উল্লেখ করে বলেন, সামনে সংসদ নির্বাচন। এখন এ ধরনের ঘটনা আমাদের জন্য দুঃখের। তারপরও আমি খবর পেয়ে সংক্ষিপ্তভাবে সমাবেশ শেষ করেছি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন