আগুনে পুড়ে ছাই বসতঘর, অক্ষত কোরআন

বাগেরহাটের মোল্লাহাটে অগ্নিকান্ডে ৩টি বসত ঘর ভস্মীভূত হয়েছে। কিন্তু ঘরে থাকা একটি কোরআন শরীফ অক্ষত অবস্থায় পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার কোদালিয়া গ্রামে জাহিদ মোল্লার বাড়িতে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিটের মাধ্যমে আগুন লেগে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে জাহিদ মোল্লা ও তার পিতা লুৎফর মোল্লার ৩টি ঘর পুড়ে যায়। তবে পুড়ে যাওয়া ঘরে পবিত্র কোরআন শরীফ থাকলেও সেটি অক্ষত অবস্থায় রয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যরা জানান, পুড়ে যাওয়া একটি ঘরের শোকেসের ওপরে রাখা ছিল কোরআন শরীফটি। আগুনে শোকেসটির সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। শোকেসের ভেতরে থাকা দলিল-দস্তাবেজ এবং মালামালও সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। কিন্তু, ছাইয়ের ভেতর থেকে কোরআন শরীফটি অনেকটা অক্ষত অবস্থায়ই পাওয়া গেছে।

খবর পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিনুল আলম সানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মাদ সাইদ মোমেন মজুমদারসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে উপজেলা প্রশাসন থেকে সহায়তার আশ্বাস দেন তারা।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, রাতে রাইস কুকারে ভাত তুলে দেওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে কুকারটি বিস্ফোরিত হয়। এতে ঘরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

পরিবারের লোকজনের চিৎকারে প্রতিবেশীরা আসতে আসতে আগুন সম্পূর্ণ ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয়দের ঘন্টাব্যাপী চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার আগেই ৩টি ঘর ভস্মীভূত হয়ে যায়। এতে ঘরের সকল মালামাল পুড়ে প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছে পরিবারটি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মাদ সাইদ মোমেন মজুমদার জানান, অগ্নিকান্ডের ঘটনা শুনে আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ঘরগুলো সম্পূর্ণ পুড়ে যাওয়ায় পরিবারটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের সহযোগিতা করার চেষ্টা করব।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
দয়া করে আপনার নাম লিখুন